নগ্ন ভিডিয়ো ভাইরাল করার অভিযোগে জেলে তৃণমূল নেত্রীর স্বামী, ডোবায় ভেসে উঠল সেই নাবালিকার মায়ের দেহ

থানার দ্বারস্থ মৃতের পরিবার

ধূপগুড়ি: দলিত নাবালিকা কে মদ খাইয়ে নগ্ন ভিডিও করে ভাইরাল করার অভিযোগ উঠেছিল। এই ঘটনায় আগেই গ্রেফতার করা হয়েছে তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য প্রতিমা সরকার ও তাঁর স্বামীকে। তাঁরাই মূল অভিযুক্ত বলে দাবি নির্যাতিতার পরিবারের। এ বার সেই নাবালিকার মায়ের দেহ উদ্ধার হল গতকাল সন্ধেয়। বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে একটি পুকুর থেকে তাঁর মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে। মৃতের নাম কবিতা বাসফোর।

এখনও জেলেই রয়েছেন পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামী পার্থ সরকার। তবে পঞ্চায়েত সদস্য জামিন পেয়েছিলেন। মাস খানেক আগে অভিযোগ দায়ের হয়েছিল ধূপগুড়ি থানায়। এক নাবালিকাকে মদ খাইয়ে তার নগ্ন ভিডিও ভাইরাল করার অভিযোগ ওঠে। এ বার তারই মায়ের মৃত্যুতে স্বাভাবিকভাবেই রহস্য দানা বাঁধছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, ওই ঘটনায় তাঁর মা মূল সাক্ষী, সে ক্ষেত্রে তাঁকে হয়ত খুন করা হয়েছে।

জানা গিয়েছে, গতকাল বিকেল ৪ টে নাগাদ জলাশয়ে দেহ ভাসতে দেখেন বাসিন্দারা। জলপাইগুড়ি জেলার ধূপগুড়ির ব্লকের খলাইগ্রাম এলাকায় নাবালিকা ভিডিয়ো ভাইরাল করার অভিযোগ উঠেছিল। এই ভিডিয়ো ছড়িয়ে পড়ায় স্থানীয় কিছু যুবক উত্যক্ত করা শুরু করে ওই কিশোরীকে। ঘটনা নিয়ে ধূপগুড়ি থানায় পরিবারের অভিযোগ দায়ের করার পর ওই প়ঞ্চায়েত সদস্যাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মৃত মহিলা সাফাইকর্মীর কাজ করতেন। পঞ্চায়েত সদস্যা প্রতিমা সরকারের বাড়িতে কাজ করতেন নির্যাতিতা নাবালিকা।

তৃণমূল নেত্রীর স্বামী পার্থ সরকার ও ওই নেত্রী নিজে নাবালিকাকে জোর করে মদ খাইয়ে দিয়েছিল বলে অভিযোগ। তার পর জোর করে কিশোরীকে বিবস্ত্র করেন এবং ভিডিয়ো তোলেন। নির্যাতিতাকে মারধরও করা হয় বলে অভিযোগ। কিছু দিন পর সেই ভিডিয়ো এলাকায় ভাইরাল হয়ে যায়। এর পর থেকেই লজ্জায় এবং ভয়ে লুকিয়ে ছিল ওই নাবালিকা। আপাতত হোনে আছে সে। আরও পড়ুন: গন্ধেই বিপদের বার্তা! সন্তানদের নিয়ে ঘরে ঘুমিয়ে গোটা পরিবার, বাইরে তখন পেট্রোল ঢেলে জ্বালিয়ে দিল কেউ…

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *