ভোটের ফল ঘোষণার পর রাজনৈতিক হিংসায় উত্তপ্ত দুই মেদিনীপুর

দেবাশীষ মাইতি: একুশে টক্করে টক্করে লড়াইয়ের পর ২১৩ টি আসনে জয়লাভ করে ক্ষমতায় আসছে তৃণমূল। ২ রা মে ফল ঘোষণার পর থেকেই  দুই মেদিনীপুর জুড়ে হিংসার খবর আসতে থাকে।

দুই মেদিনীপুরে বিভিন্ন বিধানসভায় শত শত বাড়ি, দোকান, দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, বিজেপি কর্মীদের ব্যাপক মারধরের অভিযোগ ওঠে সদ্য ক্ষমতায় আসা তৃনমূলের বিরুদ্ধে। পুর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি, খেজুরি, পটাশপুর, এগরা, নন্দীগ্রাম ও পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুর, পাঁচখুরি ইত্যাদি জায়গায় তৃণমূল বিরুদ্ধে হামলা চালানোর অভিযোগ আসছে। ভগবানপুরের ইলাশপুর বাজারে বিজেপির দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর চালানো হয়।

ভোটের ফল ঘোষণার পর রাজনৈতিক হিংসায় উত্তপ্ত দুই মেদিনীপুর

আরো পড়ুন: “বিশ্বাসঘাতক”রা আবার তৃনমূলে !!

তৃনমূলের জয়ের পর এমন সন্ত্রাসের ফলে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে এলাকাবাসী। পাল্টা হামলা চালায় বিজেপি। আক্রান্ত হয় দুই পক্ষের কর্মীরা। কাঁথির আউরিয়ার বাসুদেবেড়িয়ায় বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে চড়াও হয় তৃণমূল কর্মীরা। মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। পটাশপূর ২ নং ব্লকের আড়গোয়াল গ্রাম পঞ্চায়েতের পাইনাল বুথে এক এক বিজেপি কর্মীর বাড়িতে হামলা চালায়।

পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুরের ১১ নং অঞ্চলে এক বিজেপি কর্মীর বাড়িতে হামলা চালায় তৃণমূল কর্মীরা। পাঁচখুরিতে এক বিজেপি কর্মীর বাড়ি ভাঙচুর করা হয়। পাশাপাশি বেশ কয়েকটি মোটর বাইকে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়।

আরো পড়ুন: লকডাউন নিয়ে চিন্তা ভাবনা করার আবেদন সুপ্রিম কোর্টের!!

আজ,সোমবার মুরলীধর সেন লেনের দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকে তাঁর অভিযোগ, ”ফের পুরোপুরি ক্ষমতায় আসার আগেই রাজ্যে এত সন্ত্রাস শুরু করেছে। পুলিশ এখানে নীরব দর্শক। প্রশাসনিক আধিকারিকদের কাছে আবেদন করছি, এগুলো দেখুন, যথাযথ ব্যবস্থা নিন।” এই অভিযোগ নিয়ে বিজেপির প্রতিনিধিদল রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের দ্বারস্থ হয়। রাজ্যে একের পর এক বিরোধীদের উপর হামলার ঘটনার রিপোর্ট চেয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *